Saturday , November 28 2020
Home - ক্যারিয়ার - পেশাগত সাফল্যে কৌশলী হওয়া

পেশাগত সাফল্যে কৌশলী হওয়া

উত্তরাঞ্চল ডেস্ক : কর্মজীবনে সফল হতে হলে কৌশলী হওয়ার বিকল্প নেই। কারণ অনেক সময় দেখা যায়, প্রচুর পরিশ্রম করেও কেউ কেউ কর্মজীবনে সফল হচ্ছেন না। তাদের জ্ঞান বা দক্ষতা যে কম তা কিন্তু নয়। আসলে তারা নিজস্ব গণ্ডির মধ্য থেকে বের হচ্ছেন না বলেই সফলতা পাচ্ছেন না। তাই কর্মজীবনে সফল হতে হলে করণীয় কী তা নিয়েই আলোচনা করা হলো-

সমালোচনা গ্রহণ করতে শিখুন : কেউ আপনার সমালোচনা করা মানেই তিনি শত্রু নন। সমালোচনাকারী আপনার ভালো চাইতে পারেন। আর সমালোচনাকারীদের ভালোভাবে গ্রহণ করার ওপর কিছুটা হলেও নির্ভর করে আপনার পেশাগত জীবনের উন্নতি।

বর্তমানকে গুরুত্ব দিন : অধিকাংশ পেশাদারেরই ধারণা নিয়মিত চাকরি পরিবর্তনেই উন্নতি করা সম্ভব। যদিও এটি সবক্ষেত্রে কার্যকর নয়। এর বদলে বর্তমান চাকরিতেই চ্যালেঞ্জিং কাজ গ্রহণ করে উন্নতি করা সম্ভব। এ জন্য সঠিক সুযোগের প্রতীক্ষায় থাকতে হবে এবং বর্তমান সময়কে গুরুত্ব দিতে হবে।

আত্মসচেতনতা : সাফলের পথে এগিয়ে যেতে আত্মসচেতনতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ জন্য নিজেকে জানতে হবে এবং নিজের সব বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। নিজের যা আছে তা নিয়েই এগিয়ে গিয়ে আপনি বিজয় অর্জন করতে সক্ষম, এমন ধারণা থেকে পিছু হটা যাবে না।

পারিপার্শ্বিক সম্পর্কে সচেতন থাকুন : আশপাশের পরিবেশ-পরিস্থিতি সম্পর্কে সচেতন থাকা খুব সহজ কাজ বলেই মনে হয়। যদিও এটি সব সময় করা সম্ভব হয় না। আশপাশের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত, মানুষের কার্যক্রম, অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা ও ব্যবসার ক্ষেত্র ইত্যাদি বিশ্লেষণ করে সচেতনভাবে তা মস্তিষ্কে ধারণা করা প্রয়োজন। এসব তথ্য এগিয়ে যাওয়ার পথে আপনাকে গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার যোগাবে।

বহুমাত্রিক অভিজ্ঞতা অর্জন : জীবনের সাফল্যের জন্য বহু ধরনের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন। আপনার অভিজ্ঞতার ভাণ্ডার যত বড় হবে সাফল্যের সম্ভাবনাও তত ভালো হবে। এজন্য আপনাকে চেষ্টা করতে হবে নিত্য-নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ ও নতুন বিষয় শিখতে হবে।

শিক্ষা গ্রহণ করুন প্রশিক্ষণ নিন : পেশাগত জীবনের উন্নতির জন্য সব সময় শিক্ষা গ্রহণ করা প্রয়োজন। এ ছাড়া রয়েছে প্রশিক্ষণের প্রয়োজনীয়তা। নিয়মিত শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ পেশাগত জীবনে উন্নতির জন্য সহায়ক।

প্রফেশনাল নেটওয়ার্কিং : পেশাগত জীবন শুধু নিজের অভ্যন্তরের উন্নতির ওপরই নির্ভর করে না। এ জন্য তৈরি করতে হয় নিজস্ব পরিচিত মানুষদের একটি নেটওয়ার্ক। এ নেটওয়ার্ক ছাড়া পেশাগত উন্নতি অনেকের পক্ষেই অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়।

জ্ঞান বিনিময় : জ্ঞান হলো একটি সম্পদ। এ সম্পদ আপনি যত বেশি বিনিময় করবেন ততই তা সমৃদ্ধ হবে। কারো যদি কোনো তথ্য প্রয়োজন হয় আপনার জানা থাকলে তা তাকে জানিয়ে দিন। প্রয়োজনে এ বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করুন। এতে উভয়েই উপকৃত হবেন।